সপ্তম অধ্যায় ➤ পরমাণুর নিউক্লিয়াস

শিক্ষাক্ষেত্রে তেজস্ক্রিয়তার ব্যবহার :

(i) তেজস্ক্রিয় পদার্থ পারমাণবিক শক্তির ভূমিতে জ্বালানি রূপে ব্যবহার করা হচ্ছে।

(ii) আলফা কণার আনোয়ন ক্ষমতা, দীপ্তিমান প্রতীত তৈরি, পারমাণবিক ব্যাটারি তৈরি প্রভৃতিতে ব্যবহার করা হয়।

কৃত্রিম তেজস্ক্রিয়তা :

(ii) কতকগুলি সুস্মিত, হালকা এবং অতেজস্ক্রিয় মৌলের পরমাণুর নিউক্লিয়াসকে তীব্র গতিসম্পন্ন নিউট্রন বা কনা দ্বারা আঘাত করে পরমাণুর কেন্দ্রকটিকে স্বতঃত শুর ও অস্থায়ী করা হয়। সুস্থিত অবস্থায় ফিরতে ওই নিউক্লিয়াসগুলির ক্রমাগত তেজস্ক্রিয় বিকিরণ ঘটায়। এই ঘটনাকে কৃত্রিম তেজস্ক্রিয়তা বলে। যেমন- 10/5B+4/2He 13/7N+1/0n

(i) নিউক্লিয় বিক্রিয়ায় আলফা কনা প্রোজেকটাইল রুপে ব্যাবহিত হয়।

(ii) কৃষিক্ষেত্রে উদ্ভিদের বেড়ে ওঠা এবং উদ্ভিদের উপর বিভিন্ন রাসায়নিক সারের প্রভাব, তেজস্ক্রিয় সন্ধানী মৌলের সাহায্যে পর্যবেক্ষণ করা হয়।

(iii) তেজস্ক্রিয় পদার্থের বিঘটিত অংশ এবং অবশিষ্ট অংশের মধ্যে C6\12 ও  C6\14-এর অনুপাত পর্যালোচনা করে কোনো বস্তুর প্রাচীনত্ব, পৃথিবীর বয়স ইত্যাদি নির্ণয় করা যায়। এই পদ্ধতিকে বলে কার্বন ডেটিং।

মেন্ডেলিভের পর্যায় সারণি :
মেন্ডেলিভের পর্যায় সূত্র অনুযায়ী, মৌলগুলিকে তাদের ক্রমবর্ধমান পারমাণবিক গুরুত্ব অনুযায়ী সাজালে মৌলগুলির ধর্ম নির্দিষ্ট ব্যবধানের পর পুনরাবৃত্ত হয়। এই ঘটনাকে মৌলগুলির ধর্মের 63 টি মৌলকে তাদের ধর্ম অনুযায়ী সাজিয়ে 1869 খ্রিস্টাব্দে যে সারণি প্রকাশ করেন, তাকে পর্যায়ক্রমিক আবর্তন বা পর্যায়ধর্মিতা (periodicity) বলা হয়। মেন্ডেলিভ তাঁর সময় পর্যন্ত তাকে মেন্ডেলিভের পর্যায় সারণি বলা হয়।
বৈশিষ্ট্য : i) পর্যায় সারণির একই উল্লম্ব সারির মৌলগুলির ধর্ম একই রকমের হয়। (ii) মেন্ডেলিফ অনাবিষ্কৃত
মৌলের অবস্থানের জন্য পর্যায় সারণিতে ফাঁকা জায়গা রেখেছিলেন। (iii) পর্যায় সারণিতে মৌলগুলির অবস্থান থেকে পরবর্তী সময়ে তাদের ইলেকট্রনীয় গঠন নির্ণয় করা সম্ভব হয়েছে।

(i) পর্যায়বৃত্তিক ধর্ম :
বিভিন্ন মৌলগুলিকে তাদের পারমাণবিক ক্রমাঙ্কের বৃদ্ধির সাথে সাজালে ওই মৌলগুলির ভৌত ও রাসায়নিক ধর্মগুলির নির্দিষ্ট ব্যবধানে পর্যায়বৃত্তাকারে পুনরাবৃত্তি ঘটে, তাদেরকেই পর্যায়বৃত্তিক ধর্ম বলে।

কয়েকটি পর্যায়বৃত্তিক ধর্ম হল : a) পারমাণবিক ব্যাসার্ধ (b) তড়িৎ ঋণাত্মকতা পারমাণবিক বা (C) আয়নন বিভব।
(ii) উৎপত্তির কারন : উৎপত্তির যদি বিভিন্ন মৌলকে তাদের পারমাণবিক ক্রমাঙ্কের ঊর্ধ্ব ক্রমানুসারে অনুভূমিক সারিতে সাজান হয়, তাহলে পারমাণবিক ক্রমাঙ্কের নির্দিষ্ট ব্যবধানে একই ইলেকট্রন সংখ্যা ও বিন্যাসযুক্ত যোজ্যতা কক্ষের পুনরাবৃত্তি ঘটে। এই হল মৌলের ভৌত ও রাসায়নিক ধর্মের পর্যায়বৃত্তির কারণ।

মেন্ডেলিফের পর্যায় সারণির 3 টি ত্রুটিঃ

(i) হাইড্রোজেনের বিতর্কমূলক অবস্থান।

(ii) চার জোড়া মৌলের ক্ষেত্রে অধিক পারমাণবিক গুরুত্ববিশিষ্ট মৌলটির কম পারমাণবিক গুরুত্ববিশিষ্ট মৌলের পূর্বে অবস্থান, যা মেন্ডেলিফের পর্যায় সূত্রের বিরোধী। যেমন – Ar 39.9 K 39.1

(iii) আইসোটোপগুলির পারমাণবিক গুরুত্ব ভিন্ন হওয়া সত্ত্বেও একই স্থানে মৌলের অবস্থান। -এগুলিই হল মেন্ডেলিফের পর্যায় সারণির ত্রুটি।